কর্মক্ষেত্রের প্রথম দিনটি সুন্দর করে তুলুন

43234

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরোতে না পেরোতেই মাথায় চিন্তা ঘুরপাক করতে থাকে কবে পাব চাকরি? চাকরি আদৌ পাব তো? নানা সমস্যা, বহুমুখী পরীক্ষা পার করার পর পেলেন সেই কাঙ্ক্ষিত চাকরি।

কিন্তু নতুন চাকরি, নতুন পরিবেশের সাথে কিভাবে খাপ খাওয়াবেন তা নিয়ে আবার চিন্তায় পড়ে গেলেন। চিন্তার কিছু নেই। একটু বুঝে আর কিছুটা বুদ্ধি দিয়ে চললেই আপনার চাকরির প্রথম দিনটা হতে পারে জীবনের সবচেয়ে সুন্দর একটি দিন। আপনার চাকরির প্রথম দিনটা সুন্দর করতে পারে এমন কিছু পদক্ষেপ জেনে নেয়া যাক।

১। মনে করুন আপনি সবচেয়ে ভাল চাকরিটি পেয়েছেন। আর নিজেকে বলুন আমি পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ। নিজে হাসিখুশী থাকুন আর আপনার কাজের জায়গার সবাইকে হাশিখুশী রাখার চেষ্টা করুন। এতে অতিরিক্ত চিন্তা কিছুটা হলেও কমবে।

২। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সময়মত অফিসে পৌঁছানো। প্রথমদিন না হয় কিছুটা আগেই গেলেন। দেরী করা যাবে না কোন কারণেই। ইংরেজীতে একটা কথা আছে-“ফার্স্ট ইম্প্রেসন ইস দ্যা লাস্ট ইম্প্রেসন”। প্রথমদিন যদি দেরী করে অফিসে যান তবে আপনার বস ধরেই নেবে আপনি সারা বছরই দেরী করে অফিসে আসবেন!

৩। আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে অফিসের ডিসিপ্লিন মেইনটেইন করার উপর। অফিসের প্রয়োজনীয়তা ও পরিস্থিতি বুঝে কোন কাজটি আগে করতে হবে আর কোনটি পরে তার জন্য একটি টু ডু লিস্ট তৈরি করে ফেলুন। এতে আপনার কাজ করতে সুবিধা হবে ও সময়ও কম লাগবে।

৪। সদ্য চাকরি পাওয়ার পর অফিসের সব কাজ বুঝে নিতে অনেক ঝক্কি ঝামেলা পোহাতে হয়। অধৈর্য না হয়ে সহকর্মীদের কথা বার্তা ,চালচলন দ্বারা অফিসের হালচাল,পারিপার্শ্বিক অবস্থা বুঝে নিন। কোন বিষয়ে আপনার মতামত থাকলে নম্র স্বরে জানিয়ে দিন।

৫। আপনার সহকর্মীদেরকে জানুন। তাদের সাথে পরিচিত হোন। তাদের সাথে মিশার চেষ্টা করুন। তাদের মাঝে যেকোন বিষয় ইতিবাচক ভাবে ব্যাখ্যা করুন। এদের মধ্যে যদি কেউ সন্দেহ প্রবণ ও সমালোচনা প্রিয় হয়ে থাকে তাঁদের এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। যত কম কথা বলবেন, ততই ঝামেলায় পড়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। চেষ্টা করুন নতুন কিছু বন্ধু তৈরি করার। মনে রাখবেন এরাই আপনার চাকরি জীবনেকে অনেকখানি সহজ করে দিবে।

৬। আপনার কাজগুলো সময়মত শেষ করুন। আজকের কাজ পরের দিনের জন্য কখন ও ফেলে রাখবেন না। তাছাড়া কাজগুলো সহকর্মীদের সাথে ভাগ করে নিন। সব কাজের দায়িত্ব অন্যের ঘাড়ে চাপিয়ে দিবেন না । বুঝতে কোন সমস্যা হলে নিজেরা আলোচনা করে নিন। নিজে একা কোন সিদ্ধান্ত নিবেন না। সবার মতামতকে গুরুত্ব দেবেন।

৭। কাজে মন তখনই বসবে যখন ভালো একটা কাজের পরিবেশ থাকবে। আপনার বসার ডেস্কটি শোপিস, ফটো-ফ্রেম ও অন্যান্য ছোটখাটো জিনিস দিয়ে সাজাতে পারেন। চাইলে রাখতে পারেন আপনার প্রিয় মানুষটির ছবি।এতে যেমন আপনার ডেস্কটি আর সবার থেকে আলাদা হবে সাথে আপনার কাজেও মন বসবে।

৮। প্রথম দিনের লাঞ্চটা অফিসের সহকর্মীদের সাথে করার চেষ্টা করুন। সম্ভব হলে অফিস শেষে কোথাও থেকে খেয়ে আসুন এক কাপ কফি বা চা। এতে তাদেরকে জানার সাথে সাথে একটা ভাল সম্পক তৈরি হবে।

৯। যদি পূর্বে কোথাও চাকরি করে থাকেন, তবে পুরাতন চাকরির কাজ, পরিবেশের সাথে নতুন চাকরির কাজ, পরিবেশের তুলনা করবেন না। এতে আপনার বস, সহকর্মীরা বিরক্ত হতে পারে।
সংগৃহীত

এ সম্পর্কিত আরো লেখা