ট্রাকবহরে হামলায় মামলা: রাজশাহীর মেয়রকে হুকুমের আসামি

rajshahee_mayor

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রহরার মধ্যে গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় রাজশাহী মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে হুকুমের আসামি করে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে বোয়ালিয়া মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম এ মামলা করেন।

থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদুর রহমান জানান, মামলায় মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে হুকুমের আসামি করে আটজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া বিএনপি-জামায়াতের অজ্ঞাতনামা আরো ৩০-৩৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, মেয়র বুলবুলের উসকানি ও নির্দেশনায় ওই গাড়িবহরে হামলা চালানো হয়।

এ ছাড়া গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আটকের পর নয়জনকে দুই মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ শামসুল আরেফিন বৃহস্পতিবার গভীর রাতে নগরীর বোয়ালিয়া থানায় বসানো ভ্রাম্যমাণ আদালতে এই সাজা দেন।

বোয়ালিয়া থানার পরিদর্শক মাহমুদুর রহমান জানান, কারাদণ্ডের পাশাপাশি বিচারক প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।

পরিদর্শক দাবি করেন, বৃহস্পতিবার নগরীর কাদিরগঞ্জ ও বিনোদপুর এলাকায় গাড়িবহরে হামলার পর ঘটনাস্থল থেকে তাদের আটক করা হয়

কারাদণ্ড পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন, নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার মেহেরচণ্ডীর আবুল হোসেনের ছেলে তানজিল (২১), কোরবান আলীর ছেলে নবাব আলী (২৪), ষষ্ঠীতলার ইসলাম শেখের ছেলে রবিউল ইসলাম রুবেল (২২), রাজপাড়া থানার নতুন বিলশিমলার ফজলুল রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান পাপ্পু (২০), লক্ষ্মীপুর ভাটপাড়ার আবদুল রাজ্জাকের ছেলে নাইম (১৮), আবদুল কাশেমের ছেলে রিফাত হোসেন (১৮), মতিহার থানার ইমাতপুর এলাকার আবদুল জলিলের ছেলে মফিজুল হক (২৮), মিরকামারীর মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে রবিউল ইসলাম ববিন (৪০) এবং রহনপুরের ফাহাদ আলীর ছেলে আলী হোসেন (৪০)।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী মহানগরের কাদিরগঞ্জ ও বিনোদপুর এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর পাহারার মধ্যে ঢাকামুখী একটি গাড়িবহরে হামলা করেন জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা। তারা বহরে থাকা ট্রাকের দিকে ১৫-২০টি পেট্রল ও হাতবোমা ছোড়েন। এতে অন্তত সাতটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এ সম্পর্কিত আরো লেখা