গ্রীসের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বাংলাদেশী শ্রমিকরা

0931152

২০১৩ সালে গ্রীসে ষ্ট্রবেরি খামারে বকেয়া বেতন চাইতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশী শ্রমিকরা এবার দেশটির সরকারের বিরুদ্ধে ইউরোপিয়ান কোর্ট অব হিউম্যান রাইটসে মামলা করেছে। এ মাসের কুড়ি তারিখের পর শুনানির তারিখ পড়ার কথা রয়েছে।

গ্রীসের বাংলাদেশ সমিতির প্রেসিডেন্ট জয়নাল আবেদিন বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, ইউরোপিয়ান কনভেনশন অব হিউম্যান রাইটসের একটি অনুচ্ছেদ, যেখানে দাসত্ব ও জোরপূর্বক শ্রম নিষিদ্ধ করা হয়েছে, সেই অনুচ্ছেদ লঙ্ঘনের দায়ে প্রথমবারের মতো গ্রিসের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে।

ষ্ট্রবেরি খামারে গুলিবিদ্ধ হওয়া শ্রমিকদের ৩০জন মিলে এই মামলাটি করেছেন। ২০১৩ সালের এপ্রিলে গ্রিসের পেলোপন্নেসিয়ান গ্রামের এক স্ট্রবেরি খামারে শ্রমিকেরা তাদের ছয়মাসের বকেয়া বেতনের দাবি জানাতে গেলে সেখানকার একজন সুপারভাইজার তাদের ওপর গুলি চালায়। ওই ঘটনায় ৩২ জন বাংলাদেশী শ্রমিক আহত হয়। এরপর খামার মালিক ও সংশ্লিষ্ট সুপারভাইজারকে গ্রেপ্তার করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে ওই ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় গ্রীসের আদালত খামার মালিক ও সুপারভাইজারকে নির্দোষ বলে রায় দেয়।

এছাড়া গ্রীসের ওই আদালত ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিকদের পাওনা বেতন পরিশোধ বা কোন ক্ষতিপূরণও দেয়নি বলে জানিয়েছেন আবেদিন। সে কারণেই এখন মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং ক্ষতিপূরণের আশায় গুলিবিদ্ধ হওয়া শ্রমিকেরা এই মামলা দায়ের করেছেন।

তবে আবেদিন বলছেন, দেশটির সরকার ওই শ্রমিকদের প্রতিবছর নবায়নের শর্তে সে দেশে কাজের অনুমতি দিয়েছে। গ্রীসের বাংলাদেশ সমিতির প্রেসিডেন্ট আরও জানিয়েছেন, ওই ঘটনার পর সেখানকার অভিবাসী শ্রমিকদের বেতন পরিশোধে ব্যপারে সচেতন হয়েছে অর্থনৈতিক মন্দা ও শরণার্থী সমস্যায় ভোগা গ্রীসের মালিকরা। এ নিয়ে সেখানে নিয়মিত আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশী ও অন্যান্য দেশের অভিবাসী শ্রমিকেরা।

এ সম্পর্কিত আরো লেখা