বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অবশ্যই দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগবান্ধব: ডিএসই

20160128_1252431-640x360

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারকে অবশ্যই দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগবান্ধব বলে ব্যাখ্যা দিয়েছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারী) এক সংবাদ সম্মেলনে এমন কথা বলেন ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান অর্থ কর্মকর্তা আব্দুল মতিন পাটোয়ারী।

মতিন পাটোয়ারী বলেন, সম্প্রতি পুঁজিবাজার নিয়ে কিছু নেতিবাচক বক্তব্যের কারণে বাজারে বিরুপ প্রভাব পড়ছে এবং বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। বাংলাদেশের পুঁজিবাজার অবশ্যই দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগবান্ধব। যার প্রমাণ হিসেবে ডিসেম্বর ২০১২ সালে বাজার মূলধন ছিল ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। যা ডিসেম্বর ২০১৫তে ৩ লাখ ১৫ হাজার কোটি টাকায় এসে দাড়িয়েছে এবং প্রবৃদ্ধি ৩১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এছাড়া ২০১২ সালে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ছিল ২৪৩টি এবং ২০১৫ সালে এসে দাড়িয়েছে ২৮৮টিতে এবং প্রবৃদ্বি হয়েছে ১৮ শতাংশ। অতএব পুঁজিবাজারে যে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ হচ্ছে না তা বিভ্রান্তিমূলক এবং তথ্যনির্ভর নয়।

এর পাশাপাশি আব্দুল মতিন পাটোয়ারী নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) বিভিন্ন সাফল্য তুলে ধরে বলেন বিএসইসি দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জকে সফলতার সাথে ডিমিউচ্যুলাইজড করতে সক্ষম হয়েছে। বিশ্বের প্রায় সমস্ত ডিমিউচ্যুয়ালাইজড এক্সচেঞ্জের পরিচালনা পর্ষদ, শেয়ারহোল্ডার পরিচালক, স্বতন্ত্র পরিচালকদের সমন্বয়ে গঠিত। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র পরিচালকদের সংখ্যাগরিষ্ঠা রয়েছে যা আমাদের দেশেও অনুসরণ করা হয়েছে।

উক্ত অনুষ্ঠানে শেয়ারবাজারনিউজের পক্ষ থেকে করা নতুন সার্ভার নেয়ার পর থেকে বেশকয়েকবার ত্রুটি হওয়ার কারণ এবং এর থেকে উত্তোরনের বিষয়ে কিছু ভাবা হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ডিএসইর ডিরেক্টর বুয়েটের প্রফেসর ড. কায়কোবাদ বলেন এখানে আমাদের দুটি বিষয়ে লিকেজ ছিল: একটি হল এ সফটওয়্যার এবং সার্ভার সম্পর্কে আমাদের প্রশিক্ষনের অভাব ছিল আমরা তা সমাধানের জন্য কাজ করছি। আর অপরটি হল, এ সফটওয়্যারের কোন এক্সেস আমাদের কাছে না থাকায় সমস্যার সমাধানে একটু সময় লেগে যায়। আমরা এসব সমস্যাগুলোকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছি।

নিয়ন্ত্রক সংস্থার নির্দেশে এ অনুষ্ঠান করা হচ্ছে কিনা অন্য এক সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের জবাবে বলা হয়, না এমন নিয়ন্ত্রক সংস্থার কোন নির্দেশে নয় বরং বিভিন্ন মহলের সমালোচনা থেকে বাজারে প্রভাব এড়াতেই এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

উক্ত অনুষ্ঠানে ডিএসইর পরিচালক শাকিল রিজভী বলেন, আমাদের মার্কেট ক্যাপিটাল দিন দিনই বেড়ে চলছে। একটি গাছ ‍শুধু উপরে উঠলে চলবে না সাথে সাথে দেখতে হবে তা মোটা হচ্ছে কি না। সূচকের ধর্ম হচ্ছে ওঠা নামা করা। এটা ওঠানামা করবেই। বাজার মূলধন আমাদের বাড়ছে। যখন কোন শেয়ারবাজারে নতুন কোম্পানি আসার রাস্তা বন্ধ হয়ে যায় তখনি সূচক বেশি বাড়তে থাকে। যখন কোম্পানি বাজারে ঢুকার প্রক্রিয়া চলে তখনই সূচক ‍ওঠানামা করতে থাকে। আমাদের বাজারে দেখতে হবে মূলধনের কি অবস্থা।

এ সম্পর্কিত আরো লেখা