তনু হত্যা তদন্তে র‍্যাবের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

mizanur_rahman

বাংলাদেশের কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকায় সংঘটিত তনু হত্যাকাণ্ডকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চলছে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে লেখা এক চিঠিতে তিনি তাঁর এই আশংকার কথা জানিয়ে এই হত্যার সুষ্ঠু তদন্তের ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন।
কেন এই সন্দেহ — এই প্রশ্নে বিবিসিকে তিনি এই হত্যাকাণ্ডের তদন্তে র‍্যাবের “ছায়া তদন্ত” নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।
“ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে গিয়ে কোনো কোনো সংস্থা থেকে অতি সতর্কতা দেখেছি। আগে থেকেই কিছু কাজ করা হয়েছে যা তদন্তে বাধা তৈরি করতে পারে।”
এ প্রসঙ্গে মি রহমান তনুর মৃতদেহ খুঁজে পাওয়ার জায়গাটি খুঁড়ে ফেলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।
“জায়গাটি পরিষ্কার করে রাখা হয়েছে…যেভাবে মাটি উত্তোলন করা হয়েছে তাতে মনে হবে যেন সদ্য একটি খবর খুঁড়ে কাউকে শায়িত করা হয়েছে”।
কোন সংস্থা এটি করে থাকতে পারে– এই প্রশ্নে মি রহমান বলেন, “আমাদের কাছে বলা হয়েছে র‍্যাব থেকে সম্ভবত এই কাজটি করা হয়েছে”।
পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের প্রসঙ্গ তুলে মিজানুর রহমান বলেন, র‍্যাব প্রকারান্তরে স্বীকার করেছে তারা একটি “ছায়া তদন্ত” করছে।
“এরকম ছায়া তদন্তের কোনো এখতিয়ার বাংলাদেশের আইনে আছে কিনা, কেন এ ধরণের তদন্তের প্রয়োজন হলো .. এসব নিয়ে মানুষের মনে প্রশ্ন উঠছে”।
তনু হত্যার তদন্ত নিয়ে তার উদ্বেগ প্রসঙ্গে মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যান ময়না তদন্তের প্রশ্নও তুলেছেন।
তিনি বলেন প্রথম ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার আগেই কেন আরেকটি ময়না তদন্ত করে রিপোর্ট দেওয়া হলো তা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন দিয়েছে।
মার্চ মাসে কুমিল্লার কলেজ ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই বাংলাদেশ জুড়ে এর বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ চলছে। সেনানিবাস এলাকার ভেতরে এই হত্যাকাণ্ডকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চলছে বলে বিক্ষোভকারীরা অভিযোগ করছে।
#

এ সম্পর্কিত আরো লেখা