পৃথিবী থেকে হারিয়ে যাবে ৭০০০ আদিবাসী ভাষা

Bandarban

দেশে দেশে আদিবাসী ও সংখ্যালঘুদের ওপর গণহত্যা, জবর দখল এবং সংঘাতের কারণে তাঁদের অস্তিত্ব আজ বিপন্ন৷ এর ফলে হারিয়ে যাচ্ছে তাঁদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যও৷ হারিয়ে যাচ্ছে ভাষা৷ এমনটাই বলছে মানবাধিকার সংস্থাগুলো৷
মাইনরিটি রাইটস গ্রুপ বা এমআরসি সম্প্রতি তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ইথিওপিয়া, চীন ও ইরাকে সংঘাত, উচ্ছেদের কারণে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ও আদিবাসীদের জীবন বিপন্ন হচ্ছে৷ আর সেইসাথে তাদের সংস্কৃতিও হারিয়ে যেতে বসেছে৷ সংস্থাটির নীতি ও যোগাযোগ পরিচালক কার্ল সোডারবার্গ বলেছেন, যদিও আদিবাসী বা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর এ ধরনের নির্যাতনের ঘটনা নতুন নয়, তবে বর্তমানে তাদের উপর হামলা ও নির্যাতনের ঘটনার মাত্রা ভয়াবহভাবে বাড়ছে৷
সিরিয়া ও ইরাকে যে যুদ্ধ চলছে তাতে বহু মানুষ গৃহহীন হচ্ছে, বিশেষ করে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘু, যেমন ইয়াজিদি এবং সাবিয়ান মাদিয়ানরা সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ স্টেট অব দ্য ওয়ার্ল্ডস মাইনরিটিস অ্যান্ড ইন্ডেজেনাস পিপলস ২০১৬-এর প্রতিবেদনে এ কথাই তুলে ধরেছেন কার্ল৷
তাই নিজেদের পূর্বপুরুষের বসতি থেকে আদিবাসী সম্প্রদায় নির্মূলের সমূহ আশঙ্কা রয়েছে৷ আশঙ্কা রয়েছে তাঁদের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি হারিয়ে যাওয়ার, কেননা স্থানভেদে এ সব সংস্কৃতি লালিত হয়৷ ইরাকে সাম্প্রতিক সহিংসতায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায় যেমন ইয়াজিদি, তুর্কি, সাবাক, খ্রিষ্টান এবং কাকাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং গৃহহীন হয়েছে সবচেয়ে বেশি৷
জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী, জঙ্গি সংগঠন তথাকথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস নৃশংস অত্যাচার চালিয়েছে ইয়াজিদিদের ওপর৷ তাঁদের হত্যা করা হয়েছে, বন্দি করা হয়েছে এবং বানানো হয়েছে দাস৷ তাঁদের ওপর গণহত্যা চালানো হয়েছে বলে গত জুন মাসেও জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ সবচেয়ে ভযাবহ হলো, আইএস আদিবাসী এবং ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা ধ্বংস করছে৷ এতে করে আদিবাসীদের সংস্কৃতির পাশাপাশি তাঁদের পরিচিতিও পড়েছে হুমকির মুখে৷ কেননা যখন একটি সম্প্রদায় নিজ ভূমি থেকে উচ্ছেদ হয়, তখন তাদের সংস্কৃতি এবং এতিহ্য ধরে রাখাটা ভীষণ কষ্টকর হয়৷ এছাড়া পরবর্তী প্রজন্মে তাদের সংস্কৃতি ছড়িয়ে দেয়াটাও তখন সহজ হয় না৷ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বের এই সংঘাত পরিস্থিতি চলতে থাকলে ২১১৫ সালের মধ্যে অন্তত ৭,০০০ আদিবাসী ভাষা পৃথিবী থেকে চিরতরে হারিয়ে যাবে৷
#

এ সম্পর্কিত আরো লেখা