পানি আটকানোর প্রক্রিয়া শুরু করল ভারত

water

সিন্ধুর পানিচুক্তি খারিজ না করেই কীভাবে পাকিস্তানে এ দেশের নদীর পানি কম পাঠানো যায়, সেদিকে জোর দিচ্ছে ভারত। সেই লক্ষ্যে গত শুক্রবার উচ্চ পর্যায়ের একটি বৈঠক হয়। সিন্ধু, ঝিলাম ও চেনাব নদীর পানি ভারতের মাটিতেই সঞ্চয় করতে পরিকাঠামো নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে নয়াদিল্লি। সেই বিষয়ের প্রথম বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব নৃপেন্দ্র মিশ্র। কাশ্মীর ও পঞ্জাবের মুখ্যসচিবরাও উপস্থিত ছিলেন বৈঠকে।
জম্মু-কাশ্মীরে একটি পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো, প্রস্তাবিত পানিবিদ্যুৎ প্রকল্পের পানি সঞ্চয়ের ক্ষমতা ও কতদিনের মধ্যে কাজ সম্পূর্ণ করা সম্ভব হবে, সে বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। এই পানিবিদ্যুত্ প্রকল্প সম্পূর্ণ হলে পশ্চিম ভারতের তিন নদী সিন্ধু, ঝিলম ও চেনাব নদীর পানির একটা বড় অংশকে এ দেশে আটকে ফেলা যাবে। কিছুদিন আগেই পঞ্জাবে দাঁড়িয়ে ভারতের নদীর এক ফোঁটা পানিও পাকিস্তানে পাঠানো হবে না বলে হুমকি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
১৯৬০ সালে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সই হওয়া সিন্ধু পানিচুক্তি অনুযায়ী, দেশের পশ্চিমবাহিনী নদীগুলির পানি পাকিস্তানে বইতে দিতে হবে। তবে ৩.৬ মিলিয়ন একর ফুট ক্ষমতা সম্পন্ন জলাধার নির্মাণের ছাড়পত্রও ভারতকে দেওয়া আছে চুক্তিতে। চুক্তির এই অংশটিকেই এখন কাজে লাগাতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার। এতদিন এই জলাধার নির্মাণ না করলেও এবার এই কাজে গতি আনতে চায় ভারত। এমনকি চুক্তি অনুযায়ী, যতটা পানি এ দেশের পাওয়ার কথা, তার পুরোটাই ভারত ব্যবহার করে না। এবার নিজেদের ভাগের পুরো পানিটাই ব্যবহার করতে চায় নয়াদিল্লি।
এ বিষয়ে পরবর্তী বৈঠক জানুয়ারি মাসে হবে। মুখ্য সচিবরা ছাড়াও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, পররাষ্ট্র সচিব এস জয়শঙ্কর, অর্থসচিব অশোক লাভাসা এবং পানিসম্পদ সচিব শশি শেখর। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।
#

এ সম্পর্কিত আরো লেখা