বিএনপি কি বললো তাতে কোন যায় আসে না : এলজিআরডিমন্ত্রী

cnn1

তাজমূল আলম তাজু :
“কারো স্বার্থ বিঘিœত হয় এমন কোন চুক্তি হবে না, যার যার স্বার্থ সে দেখতে চেষ্টা করবে। আমাদের যদি স্বার্থ বিঘিœত হয় আমরা সে চুক্তি করতে যাব কেন এবংভারত তার স্বার্থ রক্ষার জন্য যদি চাপ সৃষ্টি করে সেটা রক্ষা করতে যেয়ে যদি আমাদের স্যাক্রিফাইস করতে হয়, আমরা তা মানতে যাব কেন। কাজেই এখানে সমতার ভিত্তিতে চুক্তি হবে, সমতার ভিত্তিতে নেগোশিয়েশন হবে। এখানে বিএনপি কি বললো তাতে কোন যায় আসে না।”
শুক্রবার বিকেলে কুষ্টিয়ায় শেখ রাসেল হরিপুর সংযোগ সেতু উদ্ধোধন শেষে এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এসব কথা বলেন।
জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে তিনি আরও মোশাররফ হোসেন বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আমরা জিহাদ ঘোষণা করেছি। বিএনপি প্রসঙ্গে কোন কথাই বলা ঠিক না, কেননা তারা ‘ না’ দিয়ে শুরু করেন। সবই না। তবে তারা যদি জাতীয় স্বার্থে কথা বলতে চায় তার জবাব দিতে পারি। সুতরাং বিএনপির কথার জবাব দেয়ার কোন মানে হয় না।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান, পুলিশ সুপার এস এম মেহেদী হাসান, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইবাদত হোসেন, কুষ্টিয়া এলজিআরডির নির্বাহী প্রকৌশলী সোহরাব হোসেন।
পরে শেখ রাসেল কুষ্টিয়া হরিপুর সংযোগ সেতুর পাদ দেশে জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত এক বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন ।
উল্লেখ্যঃ এলজিআরডির অর্থায়নে ৮১ কোটি ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬০৪ মিটার, প্রস্থ ৬ দশমিক ১ মিটার। এর কুষ্টিয়া অংশে ২০০ মিটার ও হরিপুর অংশে ১৯৬ মিটার সংযোগ সড়ক নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। এটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ৮১ কোটি ৭০ লাখ টাকা। সেতু পারাপারে কোনো টোল নেওয়া হবে না।
#

এ সম্পর্কিত আরো লেখা