জার্মানিতে সালাফিস্টদের সংখ্যা রেকর্ড পর্যায়ে পৌঁছেছে

Salafist

জার্মানিতে মৌলবাদী সালাফিস্ট মতাদর্শের অনুগামীদের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে বলে জানিয়েছেন দেশের গুপ্তচর বিভাগের প্রধান৷ জার্মানিতে সালাফিস্টদের সংখ্যা আগে কখনো এত বেশি ছিল না বলে জানিয়েছেন অভ্যন্তরীণ গুপ্তচর বিভাগের প্রধান হান্স-গেয়র্গ মাসেন৷
মৌলবাদী ইসলামপন্থি মতাদর্শের অনুগামীদের সংখ্যা ‘‘চিরকালের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে,’’ বলে মাসেন গত রবিবার মন্তব্য করেন৷ জার্মান গুপ্তচর বিভাগ বিএফভি-র পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে জার্মানিতে সালাফিস্টদের সংখ্যা ছিল ৯,৭০০, যা ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বেড়ে ১০,৮০০-য় দাঁড়ায়৷
মাসেন আরো জানান যে, সালাফিস্টরা ছোট ছোট গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে ব্যক্তিগত ও গোপনীয় পর্যায়ে পশ্চাদপসারণ করার ফলে কর্তৃপক্ষের পক্ষে তাদের গতিবিধির উপর নজর রাখা আরো কঠিন হয়ে উঠেছে৷
বিএফভি জানিয়েছে যে, সালাফিস্ট আন্দোলনের সদস্য সংগ্রহের চেষ্টা এখন জনপথ ও মসজিদ ছেড়ে ইন্টারনেটের দিকে ঝুঁকেছে৷ ইন্টারনেটে ছোট ছোট গোপনীয় গোষ্ঠীর মাধ্যমে নবাগতদের মৌলবাদী আদর্শে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা চলেছে৷ এক্ষেত্রে বিশেষ করে মহিলাদের নেটওয়ার্ক ক্রমাগত বেড়ে চলায় কর্তৃপক্ষ আরেকটি চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়েছেন, কেননা ইন্টারনেটে মহিলাচক্রগুলির মূল্যায়ন করা খুবই সমস্যাকর৷
জার্মান সালাফিস্টরা অতীতে একটি চোখে পড়ার মতো পথ-প্রচারণার আয়োজন করেছিল: বাজারে ও চত্বরে স্ট্যান্ড খুলে সেখানে পবিত্র কোরানের জার্মান অনুবাদ বিলি করা হচ্ছিল৷ কর্মসূচিটির নাম দেওয়া হয়েছিল ‘‘লিস!’’ বা ‘‘পড়ো!’’ – লালশালুতে যা লেখা থাকত৷ গতবছর জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস ডেমেজিয়ের সালাফিস্টদের সদস্য সংগ্রহের এই অভিযানকে সংবিধান বিরোধী হিসেবে নিষিদ্ধ করেন৷
‘অভিজ্ঞ যোদ্ধা’
মাসেন আরো বলেন যে, উত্তর ককেশাস অঞ্চল থেকে আগত ইসলামপন্থিরা জার্মানিতে নিরাপত্তার পক্ষে একটি বিশেষ ঝুঁকি হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ চেচনিয়া, দাগেস্তান বা ইঙ্গুশেসিয়ার মতো গণরাজ্য থেকে আগত প্রায় ৫০০ ইসলামপন্থি জার্মানিতে অবস্থান করছে বলে অনুমান করা হয়ে থাকে৷
‘‘সহিংসতা, মার্শিয়াল আর্টস ও আগ্নেয়াস্ত্রের প্রতি উত্তর ককেশাসের বহু ইসলামপন্থির বিশেষ প্রীতির কারণে বিষয়টির প্রতি জার্মান নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত,’’ বলে মাসেন মন্তব্য করেন৷
মাসেন বলেন যে, উত্তর ককেশাস থেকে আগত ইসলামপন্থিদের অনেকের যুদ্ধের অভিজ্ঞতা আছে, কেননা তারা শুধু চেচনিয়া সংঘাতেই নয়, সিরিয়া ও ইরাকের বর্তমান সংঘাতগুলিতেও অংশগ্রহণ করেছে৷
উত্তর ককেশাস থেকে আগত ইসলামপন্থিরা প্রধানত ব্রান্ডেনবুর্গ ও বার্লিনের মতো পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলিতেই আস্তানা গেড়েছে, বলে বিএফভি জানিয়েছে; তবে নর্থ রাইন ওয়েস্টফেলিয়া, হামবুর্গ বা ব্রেমেনের মতো পশ্চিমের রাজ্যগুলিতেও তাদের ‘হট স্পট’ রয়েছে৷

এ সম্পর্কিত আরো লেখা